Samokal Potrika

আরতি দীপ জ্বালাতে গিয়ে আগুন পলাশ

গাঁথবো ভেবেছিলাম।

মেঘের পাশ দিয়ে সরু চাঁদ উঠেছিলো সেদিন,

অনেকটা তোমার ভুরুর মতো।

ছোটোবেলা থেকেই ঐ চাঁদকে দেখতাম

ঝিলের ধারে।

তখন ও তোমার সাথে দেখা হয়নি আমার।

বিকেলবেলা আগুন রাঙা কৃষ্ণচূড়ার ডালে

প্রতিদিন একটি কোকিল এসে ডাকতো।

হয়তো শেষ বসন্তের খবর দিয়ে যেত।

 

তারপর একদিন ফাঁকা ফুলবনি স্টেশনে

তোমায় একা পেয়ে প্রথম নন্দিনী বলে

ডেকেছিলাম।

কি যেন বলেছিলে তুমি...........

ঠিক মনে নেই।

তোমার উড়ন্ত খোলা চুলে সেদিন প্রথম বসন্ত খুঁজেছিলাম।

তোমার ঘন কালো চোখে একটুকরো

ভারতবর্ষ দেখেছিলাম।

 

ইচ্ছে করেই তোমাকে আমি নন্দিনী বলে ডাকি।

তোমার শরীর স্পর্শ করে যে হাওয়া নীল মেঘে উড়ে যায়...............

সে আমার কবিতা,

ধূসর মরুভূমির বুকে বৃষ্টি,

এক ঝকঝকে আগুন রাঙা বিকেল।

যেখানে তোমার ইষ্টি কুটুম হয়ে আসার

কথা ছিলো।