Samokal Potrika

1)
স্বপ্নে-টপ্নে বাস্তবে

এতদিনেও স্বপ্নের পক্ষীরাজ বহু ক্রোশ ছুটে
পায় নি কোনো কূল অথবা কিনারা|
তাহলেও অবুঝ মন ইশারায় কখনো-সখনো বলে,
ঝড়ের সামনে নাক-বরাবর থাক্ না শিরদাঁড়া|
মানস-ককপিঠে স্বপ্নদের ওঠা-বসায়
অতএব অলিরা হাসুক ছুঁয়ে দীর্ঘ রাত্রিকাল|
সৌরভে ভালোবাসার ক্ষরণে মরমে
আরোও কিছুকাল উড়ান মাতাল জলবাতাসে|
স্বপ্নিল আলপথ ধরে তদ্দূর যাচ্ছি হেঁটে
যাবতীয় কষ্টের ধূর্ত নজর নেই যেখানে|
উল্লাস-বজরায় চেপে কুড়োই মুঠো মুঠো সুখ
কাছেপিঠে উধাও যখন দুর্বৃত্তের নড়াচড়া|
বন্দরের সন্ধানে হাপিত্যেশে স্বপ্ন-বিমানে
ঘুরপাক খাই শূন্যতায় মেনে অশরীরী,
অধরা আস্বাদে গহন রাতের ক্যানভাসে
পাখীটির নিমন্ত্রণে শুধুই তখন আত্মহারা|

এতকালেও বাস্তবে ঢুঁ মেরে স্বপ্নের পাখীটি
এখন কাঁপছে দাঁড়ে ব্যর্থতার উষ্ণায়নে...|

2)
বদল বদলে বদল

বদলে যাওয়া জীবন-পটে ছিটকে কিছু পড়লে চোনা
সানন্দে শুরু হলো ঢাক গুড় গুড় নাভিশ্বাস |
হায়রে হায়! ক্ষতিরা সব মুখ টিপে হাসছে যেন
আভাসখানির নতুন কলেবরে,
তবুও সেই বদল ছন্দপতনের আঁতুরঘর জেনে
কেনই বা ওড়ে ছাইপাশ ?
উড়ুক,উড়ু্ক, উথলে উঠুক খানা-খন্দে ভরা
দিনগুলোর চলমান পথ,
মধ্যমণি রতিপতির বদনে তখুনি মুচকি হাস্যে ভাসে 
সুড়সুড়ির আবিল ঘন জঙ্গল
সেখানে শার্দুলেরা উঁচিয়ে রাখে থাবা অনুক্ষণ
আর বাড়ায় শুধু প্রাণের জট |
জটিলতায় মনের আসরে পানসে পানসে হাওয়ায়
নেইকো বুঝি কোনই মধুরিমা,
বদল-বাতাসে জোয়ার-টানে আত্মহারার দলে
কোথায় তখন সীমা-পরিসীমা ?
অতএব হতেও পারে তালাশ-তালাশ পরব,
কোন্ ফোকর পেয়ে ঢুকল কালনাগ
আরোও আরোও সিঁড়ির পর সিঁড়িতে এগিয়ে পাগুলো
টালমাটালে ভাবি, লাগ ভেলকি লাগ !
হয়তো এখন এলাম ফিরে আদেখলেপনার নেশাটুকু
ফুৎকারে উড়িয়ে দিয়ে মহাসাগরে,
জাগু্ক, জ্বলুক এবার আশনাইয়ে মত্ত নাগরেরা
উড্ডীনে রঙীন কল্প-ফানুস চড়ে !

3)
বাঁচন

পোড়-খাওয়া প্রতিদিন যাপনের গুরুত্বে
অস্তিত্বের ঠিকানাগুলো সুখকর, সুমধুর...|
বুঝি নিজস্ব সত্তার স্বাচ্ছন্দে
অভিজ্ঞ হওয়ার কঠোর অনুশীলন |
কত দুঃখ পাখসাট মেরে আলতো ছুঁয়েছে
আমার দিনরাত, রাতদিন অন্তহীন |
তবুও সুখী-সুখী হাস্যতে ফুটেছিল
রাজকীয় মাধবী জ্যোৎস্না |
তেমন আলোকপাতে কাটব্যের বর্শাগুলোও
পারে নি ছুঁতে বলয়খানি |
পোড়-খাওয়া যাপনের তুখোড় আস্বাদনে
বাঁচন এখন আমার কণ্ঠলগ্না !