বুকে পাষাণ বেঁধে কথাটা মাকে বলার পর—

দেখতে পেলাম, মায়ের চোখ থেকে পানি গড়িয়ে পড়ছে!

" />

Samokal Potrika

সংসারে অভাব দ্যাখা দিলে-- বাবা ধার করে ভাত কিনে খাওয়াতেন,

ব্যবসায়ে মুনাফা অর্জিত না হলে

বাড়ির গাছপালা উজাড় করে ধার-কর্জ পরিশোধ করতেন।

অন্যদিকে আমার মা—

গরু-ছাগল, হাঁস-মুরগী বিক্রি করতেন ডিম-ডাম,

তেলাকচুর পাতা, সজনে শাক, এটা সেটা রান্না করে চালিয়ে দিতেন।

এভাবে চলতে চলতে হঠাৎ করে একদিন আমরা সুখের মুখ চোখে দেখতাম।

বাবা ব্যবসায়ে ধরা খেলে আবার নিজ পায়ে হেঁটে দুর্দিন ঘরে ঢুকতো,

সুদিনের খোঁজ পেতে মায়ের গহনা ফুরালো মায়ের বাপের বাড়ির জমি,

বাবা তার পৈত্রিক সূত্রে পাওয়া জমি ঘুচালেন, আরো কতো কি!

এতো কিছুর পরও বাড়ির কালো খাশিটা রয়ে গেলো,

কালো খাশিটার প্রতি মায়ের খুব টান।

শখ করে ছাগলটির নাম রেখেছিলেন 'কালামানিক'।

কালামানিক মাকে দেখলে মাথা এগিয়ে দেয়।

অতিরিক্ত বর্ষণে মাটির ঘরটা ধসে পড়ার পর বাবা একদিন বললেন,

" তোর মাকে রাজি করাতে পারিস কি দ্যাখ,

কালামানিককে বিক্রি করলেও এক গাড়ি ইটের টাকা হবে।"

বুকে পাষাণ বেঁধে কথাটা মাকে বলার পর—

দেখতে পেলাম, মায়ের চোখ থেকে পানি গড়িয়ে পড়ছে!