Samokal Potrika

তুমি বলেছিলে ভাবনা গুলো সাজিয়ে রাখি একটার পর একটা, তার পরতে পরতে জমা হয় প্রেম, প্রথম দেখার অনুভূতি অথবা ছুঁয়ে থাকার ইচ্ছা বা কোনও স্বপ্ন পূরণের অদম্য আকাঙ্ক্ষা । কিন্তু এই সাজাতে সাজাতে দেখি আমি বেলা ফুরিয়ে আসে, আবার কোনও গল্প শুরু হয় আগামী দিনের কথা ভেবে, স্মৃতির পাহাড় জমতে জমতে ঘনীভূত হয় মেঘ, বাদলের ঘনঘটায় ছেয়ে যায় কালো আকাশ, আসে ঝড় ঝাঞ্ঝা, সব কিছু ওলটপালট হয়ে বিক্ষিপ্তভাবে ছড়িয়ে পড়ে চারিদিকে, তারপর সেই শান্তির বৃষ্টি, তুমি আমি এক হই, আবার নতুন করে সাজানোর পালা, সেই প্রথম থেকে । দুজনার মন , প্রাণ, দেহ নতুন করে সাজবে বলে শুরু হয় নতুন ভাবনা, যার পরতে পরতে......

কতক্ষণ আর ছুঁয়ে থাকা ?

2
শেষ Bus-এ সে বাড়ী চলে গেছে......
এখন শুধু ছাদের পাইপ গুলো থেকে টপ টপ করে জল পড়ার শব্দ আর এক ঘেয়ে ঝিঁঝিঁ পোকার ডাক ।
সে এসেছিল, ডেকেও ছিল যে ভাবে তুমি চেয়ে ছিলে, অপেক্ষায় ছিল বেশ কিছুক্ষণ তারপর আবার রওনা দিয়েছে অনির্দিষ্ট গন্তব্যে
শুধু সাড়া না পাওয়া সময়ের নিরাবতা অবাক মনে মেনে নিয়েছিল "মহুয়া"র সামনে দিয়ে হেঁটে যেতে যেতে...

3

চাইলে তুমি সব দেবে ? অকাতরে ….
তোমার না বলা সব কথা ? যা কোনও দিন কাউকে বলবে না বলে, জমিয়ে রেখেছ বুকের ভিতর ..
.তোমার সব ব্যথা ? চিন চিনে তরঙ্গে, বার্তা রেখে আসে তোমার চোখের পাতায়........
.তোমার সব কান্না ?...বালিশে চাদরে আদরে, মিলে মিশে একাকার হয় রোজ রাতে.....
তোমার সব অভিমান ? ঠোঁটের সাথে ওরাও মাঝে মাঝে আড়ি করে আমার সাথে …..
পারবে দিতে ? এক মুঠো তুমি…..
তোমার শ্বেত কমলের উষ্ণতা, তোমার নাভি পদ্মের গন্ধ.....

4

যার কাছে তুমি তাঁর মনের বিনোদনের উপলক্ষ্য মাত্র, তাঁর জীবনে তোমার স্থায়িত্বের কোনও স্থিরতা বা মূল্য নেই, তাই তার উচ্ছাসে বা প্রশংসায় স্থির থেকো, বরং তোমার কথায় যার মনে কষ্ট হয়, তাতে সে যদি তোমাকে কটু কথাও বলে, তবু জানবে, সে তোমার চিরকালের...

মন যখন ভালো লাগছে না, তখন কেমন একটা দুঃখ দুঃখ ভাব হয়, পৃথিবীর সব দুঃখ গুলো জড়ো হয়ে কাঁদতে বলে, সব অভিমান গুলো মনের কাছে বেড়াতে আসে, যেন আত্মীয় বাড়ি এসেছে, যাওয়ার নামটি নেই, কান্নাগুলো গলার কাছে জমাট বাঁধে কালো মেঘের মতো, কালবৈশাখী হলেও হতো, পরে ঠাণ্ডা বাতাস বয়, মনটা শীতল হয়, কিন্তু এযেন একটা গুমোট ভাদুরে দিন, সময়টা থমকে গিয়ে বলে তার আর কোন কাজ নেই, এমনি এমনি বসে আছে শেওলা ধরা ভাঙা মন্দিরের সিঁড়িতে, গাছের পাতাগুলোও নড়তে ভুলে গেছে, ওদের এখন গ্রীষ্মাবকাশ, সেই বর্ষার বৃষ্টি এলে আবার ভিজবে, আবার হাসবে, চক চক করবে ওদের ধুলো মাখা গা । একটানা ঝিঁঝিঁ পোকার শব্দে মতো মনটা নিজেকে কী্ যে বলে চলেছে সে হয়তো নিজেই জানে না, আর জানেনা বলেই বুকের কাছে কেমন একটা চিনচিনে ব্যথা সুর ধরে ঘুণ ধরা বহু পুরনো হারমোনিয়াম বাক্সটার মতো, তখন ইচ্ছাকরে ছুঁড়ে ফেলে এই সব যা আমার ভালোবাসা, যা আমার ভালোলাগা, নতুন কোন পোশাক পরি যাকে তুমি বল, “মন ভাল নেই”।

5

তেমন মিথ্যা কিছু বলিনি, খুব সত্যি কথাও আবার সব সময় সবাইকে বলা যায় না, স্থান , কাল পাত্র বিবেচনা করতে হয়, তবে মানুষ ( ?) চিনছি...

কাকে যে তুই আপন ভাবিস
কে যে হল পর
দুঃখের দিনে টেরটি পাবি
আসলে পরে ঝড়

যে জন এসে মুচকি হেসে
চাপড়ে যায় পিঠ
ভাবিস বুঝি আপন ভারি
চির জীবনের গিঁট

অনেক যদি আসয় থাকে
বিষয় গোনে লোক
দামটি তবে রইবে কিছু
যা কিছু হয় হোক

বাকি যা শুনিস অথবা ভাবিস
সবই কথার কথা
নিক্তি মেপে জগৎ চলে
বুঝবে না কেউ ব্যথা

তাই বলি আজ নে শিখে নে
দেঁতো হাসির ভাঁজ
মিষ্টি কথার আহা উহু
এই টুকু তোর কাজ...

একটু যদি পেতাম ছুটি
হাওয়ায় ওড়া
শিমূল তুলোর মত

ভেসে ভেসে আপন মনে
যেতাম উড়ে নগর ঘুরে
বাদল মেঘের মত

ঘুর্ণি ধুলোর ঊর্ণি হয়ে
মনের আঁচল দি বিছিয়ে
অবহেলার অলস খেলায়
শুকনো পাতা যত

একটু যদি পেতাম ছুটি
ঝরা ফুলের মত......